x 
Empty Product

Articles

ফ্রুট ব্যাগ ব্যাবহার পদ্ধতি

User Rating:  / 0
PoorBest 

ফ্রুট ব্যাগিং করা আম দীর্ঘদিন ঘরে রেখে খাওয়া যায়। এই পদ্ধতি ব্যবহারের কারণে আম সংরক্ষণ করতে ফরমালিন নামক বিষাক্ত রাসায়নিকের প্রয়োজন হবে না। এছাড়াও ফলকে বাইরের বিভিন্ন ধরনের আঘাত, পাখির আক্রমণ, প্রখর সূর্যালোক এবং রোগ ও পোকামাকড়ের আক্রমণ থেকে সহজেই রক্ষা করা সম্ভব। নির্দিষ্ট সময়ে ব্যাগিং করা গেলে কোনো স্প্রে ছাড়াই ক্ষতিকর পোকার হাত থেকে আম ফলকে রক্ষা করা সম্ভব।

# ব্যাগিং প্রযুক্তি হতে ভাল ফলাফল পাওয়ার জন্য কয়েকটি বিষয়ের প্রতি অবশ্যই নজর দিতে হবে:

১। নির্দিষ্ট সময়ে ব্যাগিং করতে হবে। আম ব্যাগিং করার উপযুক্ত সময় যখন আমের বয়স ৩৫-৪০ দিন।

২। ব্যাগিং করার আগেই মরা মুকুল বা পুষ্পমঞ্জুরির অংশবিশেষ, পত্র, উপ-পত্র ছিঁড়ে ফেলতে হবে।

৩। ব্যাগিং করার পূর্বে আমগুলিকে কীটনাশক ও ছত্রাকনাশক একত্রে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।

৪। ব্যাগিং করার কমপক্ষে ৩ ঘন্টা পূর্বে স্প্রে করতে হবে। যেমন বিকেল বেলায় ব্যাগিং করতে চাইলে সকাল বেলায় স্প্রে করতে হবে। তবে স্প্রে করার পরের দিনও ব্যাগিং করা যাবে যদি বৃষ্টিপাত না হয়।

৫। আম ভেজা অবস্থায় ব্যাগিং করা উচিৎ নয়। আমের ত্বক নষ্ট বা আমটি আস্ত পচে যেতে পারে।

৬। ব্যাগিং করার সময় আমটি ব্যাগের মাঝ বরাবর রাখতে হবে।

৭। উপরের সবকয়টি বিষয় সম্পুর্ন হলে ব্যাগের উপরের প্রান্তটি ভালভাবে মুড়িয়ে দিন যেন পানি বা অন্যকিছু প্রবেশ করতে না পারে।

 

আরও জানুন:

১. নির্দিষ্ট বয়সে ব্যাগিং আরম্ভ করতে হবে। একটি পুষ্মমঞ্জুরীতে অনেকগুলো আম থাকলে প্রথমেই ফল পাতলা করতে হবে। এরপর সবচেয়ে ভালো, দাগমুক্ত একটি অথবা দুটি আমে ব্যাগিং করতে হবে। তবে বড় জাতের আমের ক্ষেত্রে প্রতি পুষ্মমঞ্জুরীতে একটির বেশি ফল রাখা উচিৎ নয়। গায়ে মরা ও শুকনা আম, উপপত্র, মুকুলের অংশবিশেষ লেগে থাকলে বা ব্যাগিং করতে অসুবিধার সৃষ্টি করলে তা পরিষ্কার করতে হবে।
২. সময়মত প্রয়োজনীয় ব্যাগ সংগ্রহ করা এবং প্রয়োজনীয় শ্রমিকের ব্যবস্থা করা। চেয়ার বা টুল বা মই সঙ্গে থাকলে ভাল হয়। ব্যাগিং করার পূর্বে শুধু আমকে একটি কীটনাশক ও একটি ছত্রাকনাশক একত্রে মিশিয়ে ভালোভাবে ¯েপ্র করতে হবে। এরপর আমগুলো শুকালে ব্যাগিং আরম্ভ করতে হবে। রৌদ্রোজ্জ্বল দিনে ব্যাগিং করা উত্তম। আম ভেজা অবস্থায় ব্যাগিং করা ও খোলা উচিৎ নয়।
৩. ব্যাগের উপরের অংশ দুই পার্শ্ব হতে ভাঁজ করতে করতে মাঝ বরাবর আসতে হবে। এরপর সংযুক্ত তার দ্বারা ভালোভাবে মুড়িয়ে দিতে হবে যেন কোন অবস্থাতেই পানি, পিপড়া, মিলিবাগ প্রবেশ করতে না পারে।
৪. রঙিন আমের জন্য একস্তর যুক্ত সাদা ব্যাগ এবং অন্য যে কোন জাতের জন্য বাদামি ব্যাগ ব্যবহার করতে হবে। এখানে বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে, দুই স্তর যুক্ত বাদামি রঙের ব্যাগ যে কোন আমকে রঙিন করতে পারে অর্থাৎ হলুদ করতে পারে।
৫. ব্যাগিং শুরু করার পূর্বে হাতে-কলমে শিখে নেওয়া ভালো। ব্যাগ ব্যবহার করার পর ছিড়ে গেলে বা নষ্ট হলে একত্রে করে পুড়িয়ে ফেলুন। পানিতে ডুবিয়ে রাখলেও পচে নষ্ঠ হবে।

 

পরিশেষে, নিরাপদ ও বিষমুক্ত আম সহজলভ্য ও সহজপ্রাপ্য হোক সকল মানুষের জন্য। এই প্রত্যাশা "ফজলি ম্যাংগো প্যাক" টিমের। ব্যাগিং করতে সমস্যা হলে প্রয়োজনে যোগাযোগ করুন : ০১৭১২৩৩৯৯৫৫, ০১৬১২৩৩৯৯৫৫, ০১৯১৯৩৩৯৯৫৫ নাম্বারে। ## কিভাবে ব্যাগিং করবেন-এই টপিকে আমাদের চ্যানেলে ২টি ভিডিও আপলোড আছে। চাইলে দেখে আসতে পারেন। Youtube.com/MangoRajshahi

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found